বরই এর গুনাগুন
0

বরই কিংবা কুল, দুই নামেই সমান পরিচিত ফলটি।বরই গাছ বাংলাদেশের প্রায় সব অঞ্চলে সব মাটিতেই জন্মে এবং ভালো ফলন দেয়। যুগের পর যুগ ধরে  যত্নআত্তির ছাড়াই দিব্যি বেড়ে উঠে গাছ ।এই গাছ অবহেলাতেই বছরের পর বছর  বেড়ে উঠছে  এবং ফল দিচ্ছে । কিন্তু বর্তমান সময় বরই সেই সময় হারিয়ে গেছে ।বর্তমানে  বিভিন্ন অত্যাধুনিক প্রযুক্তির এবং বিভিন্ন পদ্ধতি অবলম্বন করে যত্ন করে চাষ করা হয়। বরই যেমন অর্থকরী, তেমনি পুষ্টিগুণসমৃদ্ধ।বরইয়ে ভিটামিন-এ, ভিটামিন-সি, ক্যালসিয়াম, পটাশিয়াম, ম্যাগনেসিয়ামসহ আরো অনেক জানা অজানা পুষ্টি রয়েছে । রোগ প্রতিরোধে বরই গুরুত্ব অতুলনীয় , অন্যদিকে শরীরের রোগ প্রতিরোধক্ষমতা বাড়িয়ে তুলতে বরই কার্যকরী ভূমিকা রাখে। বরই অনেক কার্যকরী সকলের জন্য হলেও ডায়বেটিস রোগীদের জন্য এটি ভয়াবহ । পাকা বরইয়ে যে চিনি রয়েছে সেটি ডায়বেটিস রোগীদের জন্য উত্তম।  শ্বাসকষ্ট রোগীদের জন্য  কাঁচা বরই বেশি খেলেই  তাঁদের শ্বাসকষ্ট  বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে

বরই অনেক অনেক জাতের মধ্যে উল্লেখযোগ্য কিছু জাত হলোঃ

১) দেশি টক বরই

২) নারকেল বরই

৩) আপেল কুল

৪) বাউ কুল

৫) বল সুন্দরী   ইত্যাদি।

বরই’র বিভিন্ন  উপকারীতা

১.ক্যান্সার প্রতিরোধ
২.রক্ত পরিশুদ্ধি
৩.দুশ্চিন্তা
৪.ইনসোমনিয়া বা অনিদ্রা
৫.রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা
৬.লিভারের সুরক্ষা
৭.ওজন নিয়ন্ত্রণ
৮.হাড় মজবুত করে
৯.রক্ত সঞ্চালন

বরই এর পুষ্টিগুণ

বরইয়ে রয়েছে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন সি, খনিজ লবণ, ক্যালসিয়াম, ফসফরাস, আয়রন ইত্যাদি। এছাড়াও বরইয়ে আছে আরো অনেক পুষ্টি গুণাগুন।

৮০ গ্রাম কুল বরই এ যে সকল খাদ্য উপাদান বিদ্যমান তার একটি তালিকা নিচে দেওয়া হলঃ

উপাদানের নাম   এবং পরিমান
ক্যালরিঃ ২৯ কিলো ক্যালরি
আমিষঃ ০.০৫ গ্রাম
চর্বিঃ ০.১০ গ্রাম
কার্বহাইড্রেটঃ ৭.০০ গ্রাম
ফাইবারঃ ১.৭০ গ্রাম
পটাশিয়ামঃ ১৯২ মিলিগ্রাম

Leave a Comment

Your email address will not be published.

TOP